সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০৭:০৫ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সারাদেশে সংবাদ কর্মী নিয়োগ চলছে যোগাযোগ  ইমেলঃ bdtimenews247@gmail.com
সংবাদ শিরোনাম :
‘মক্কা-মদিনা শাটডাউন করতে করোনা ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্রের সৃষ্টি’ র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‍্যাব ১১ নাঃগঞ্জ শহরে মহড়া। শ্রীনগর সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে জনসচেতনতা তৈরি ও ডেটোল সাবান বিতরণ। লক ডাউন বাংলাদেশে অসহায় বঞ্চিত হিজরা জনগোষ্ঠীর সাহায্যের আবেদন। আজকের পুলিশ আর ২০/৩০ বছর আগের পুলিশ কিন্তু এক না।শামীম ওসমান ভূমি দস্যু সায়েম,নুরু, সুইব, হারুন গংদের বিরুদ্বে আত্মসাৎ ও প্রতারনার অভিযোগ।   মোঃ সোহেল মাহাম্মুদ এর পক্ষ থেকে ২১ শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী। মোঃ সরদার সম্রাট শেখ এর পক্ষ থেকে  ২১ শে ফেব্রুয়ারি  উপলক্ষে সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী।  আলহাজ্ব তাসলিম হোসেন এর পক্ষ থেকে ২১ শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী। মোঃ তোফাজ্জল হোসেন  এর পক্ষ থেকে ২১ শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী।
মানিকগঞ্জ আ’লীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা নিয়ে কেন্দ্রে অভিযোগ

মানিকগঞ্জ আ’লীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা নিয়ে কেন্দ্রে অভিযোগ

মানিকগঞ্জ আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের সাংগঠনিক দুর্বলতা নিয়ে কেন্দ্রে অভিযোগ জানিয়েছেন জেলা ও উপজেলার নেতারা। জেলায় তিন বলয়ের হস্তক্ষেপে সংগঠনের ভিত্তি নড়বড়ে বলেও জানান তারা। কেন্দ্রীয় নেতারাও অভিযোগকারীদের জানিয়েছেন, বিষয়টি তারা ওয়াকিবহাল আছেন।

গত ২ নভেম্বর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দিপু মনি ও সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সাথে সাক্ষাৎ করেন জেলা ও উপজেলার নেতারা। জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ ফটোর নেতৃত্বে সাত উপজেলার চেয়ারম্যান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল ও সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাজেদ খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন। কেন্দ্রীয় নেতারা সময় নিয়ে তাদের কথা শুনেছেন, অভিযোগ নোট করেছেন।

নেতারা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট গোলাম মহিউদ্দিন, মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয় ও মানিকগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ তুলে ধরেন।

 

অভিযোগে বলা হয়, মানিকগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের কমিটি গঠনে কোনো সম্মেলন করা হয় না। ওই তিনজন মিলে ফেসবুক কমিটি গঠন করেন। এসব কমিটিতে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের জায়গা হয় না। তবে অনুপ্রবেশকারীরা বাগিয়ে নেয় গুরুত্বপূর্ণ পদ। জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সংসদ সদস্যদের অনুমতি ছাড়া ওয়ার্ড ও ইউনিয়নেও কোনো সম্মেলন দিতে পারেন না উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। অনেক অনুষ্ঠানে তাদের দাওয়াতও দেওয়া হয় না।

জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক এবং হরিরামপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেওয়ান সাইদুর রহমান অভিযোগ করেন, কোন সম্মেলন না করেই উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি করা হয়েছে ছাত্রদল নেতা লুৎফরকে। সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাজেদ খান অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের কোনো অনুষ্ঠানে তাকে দাওয়াত করা হয় না। কোনো কমিটি অনুমোদনেও তাকে জানানো হয় না। এসবই সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের ইচ্ছা অনুযায়ী হয়।

সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের বিরুদ্ধেও অভিযোগ কম নয় ঘিওর, দৌলতপুর ও শিবালয়, এই তিন উপজেলার সংসদ সদস্য তিনি। তবে তার কারণে উপজেলা চেয়ারম্যানরা কোনো কাজ করতে পারেন না বলে অভিযোগ করা হয়। এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সহযোগি সংগঠনের যতগুলো কমিটি হয়েছে সবগুলো তার ইচ্ছা অনুযায়ী হয়েছে। অর্থাৎ ঘরে বসে কমিটি বানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কবে কোন কমিটি হচ্ছে, কমিটিতে কারা আসছে তা জানেন না উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। তার অনুমতি ছাড়া কোনো ইউনিয়ন, এমনকি ওয়ার্ডেও কোন সভা বা সম্মেলন করতে পারছেন না নেতারা। ফলে ওই তিন উপজেলায় দলের ত্যাগী নেতাকর্মীর চেয়ে এখন অনুপ্রবেশকারীদের সংখ্যাই বেশি। এসব অভিযোগ করলেও সংসদ সদস্যের ভয়ে সংবাদ মাধ্যমে নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি কেউ।

 

গোলাম মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ

অর্থের বিনিময়ে পদ বিক্রি, ত্যাগী নেতাকর্মীদের দলে জায়গা না দেওয়া, দলে অনুপ্রবেশকারীদের অংশগ্রহণ ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্যসহ নানা অভিযোগ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট গোলাম মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে। নেতারা জানান, অর্থের বিনিময়ে জেলা জাকের পার্টির সভাপতি আব্দুর রহিম খানকে জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক করা হয়েছে। অথচ দলে জায়গা হয়নি জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম ও সাংগঠনিক সম্পাদক দীপক কুমার ঘোষের। টাকার বিনিময়ে সভাপতির নিজ উপজেলা হরিরামপুরে আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি (বর্তমানে বহিষ্কৃত) করেছেন দুর্নীতিবাজ সেলিম মোল্লাকে, কোষাধক্ষ্য করেছেন মাদক ব্যবসায়ী মাসুদকে। অথচ এরা কখনো রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক নেতা জানান, কেন্দ্রীয় নেতারা তাদের আশ্বস্ত করেছেন, মানিকগঞ্জের ব্যাপারে তারা ওয়াকিবহাল আছেন, দলে অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়ে তাদের কাছে তথ্য রয়েছে। আগামী কাউন্সিলে দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে। চিহিৃত অনুপ্রবেশকারী ও বিতর্কিতরা দলে জায়গা পাবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
সম্পাদক- মোহাম্মদ আলী। বার্তা সম্পাদক- মোঃ সানি হোসেন। নির্বাহী সম্পাদক- আনিছুর রহমান।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web